Basic Info BD https://www.basicinfobd.com/2022/04/google-drive.html

গুগল ড্রাইভ কি? কিভাবে কাজ করে? কেন ব্যবহার করবেন?

অনলাইনে আমাদের পারসোনাল অনেক ডেটা স্টোরেজ করে রাখা সম্ভব। আপনি কি জানেন এটা কিভাবে এবং কোথায় রাখা যায়? এটা হল গুগল ড্রাইভ। হ্যা ঠিক তাই আপনি আপনার সমস্ত পার্সোনাল ইমপর্টেন্ট ডকুমেন্ট, ফাইল, ফটো ইত্যাদি খুব সহজেই গুগল ড্রাইভে সেভ করে রাখতে পারবেন। আপনার ফোন হারিয়ে গেলে অথবা নস্ট হয়ে গেলেও খুব সহজেই গুগল ড্রাইভ থেকে সেভ করা তথ্য গুলো পেয়ে যাবেন এবং এটি নিরাপদ । 

পেজ সুচিপত্রঃ-

গুগল ড্রাইভ কিঃ

সহজ ভাষায় বলতে গেলে Google Drive হল অনলাইন স্টোরেজ। যেখানে আপনি আপনার সমস্ত পার্সোনাল ইমপর্টেন্ট ডকুমেন্ট, ফাইল, ফটো ইত্যাদি খুব সহজেই সেভ করে রাখতে পারবেন। গুগল ড্রাইভে ফ্রিতে ১৫ জিবি পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন। এর বেশি স্পেস ব্যবহার করতে চাইলে পেমেন্ট করতে হবে। এটি গুগল কোম্পানি ২৪ এপ্রিল ২০১২ সালে লঞ্চ করে। বর্তমানে এই অ্যাপস টি ১ বিলিয়ন মানুষ ব্যবহার করছে। তো বুঝতেই পারছেন এটি কত জনপ্রিয়। 

গুগল ড্রাইভের কাজঃ

গুগল কোম্পানির Google Drive অ্যাপস টি ব্যবহার করতে চাইলে, অর্থাৎ গুগল ড্রাইভে ফ্রিতে ১৫ জিবি পর্যন্ত সুবিধাপেতে চাইলে প্রথমে আপনাকে গুগলে একটি একাউন্ট খুলতে হবে। এর পর আপনি গুগল ড্রাইভে লগইন করতে পারবেন।গুগল ড্রাইভের মধ্যে আপনি অনেক গুল অপশন পাবেন। এর মধ্যে নিউ, মাই ড্রাইভ, কম্পিউটার, ফাইল, বিন ইত্যাদি অন্যতম। 




মাই ড্রাইভ এবং নিউ এ গেলে আপনি অনেক গুলো অপশন দেখতে পাবেন যে গুলো একই। এ গুলি হল নিউ ফোল্ডার,আপলোড ফাইল, আপলোড ফোল্ডার, গুগল ডক্স, গুগল শিটস, গুগল স্লাইডস, গুগল ফর্মস, এছাড়াও আরো রয়েছেগুগল ড্রয়িং, গুগল মাই ম্যাপস, গুগল সাইটস, গুগল জামবোর্ড ইত্যাদি। গুগল ড্রাইভে নতুন কোন ফোল্ডার তৈরি করতে চাইলে বা নিতে চাইলে নিউ ফোল্ডার থেকে নিতে পারবেন।



তেমনি ভাবে Google Drive এ কোন ফাইল আপলোড করতে চাইলে আপলোড ফাইলে গিয়ে ফাইল আপলোড করতে পারবেন। আপনার স্মার্ট ফোন কিংবা কম্পিউটার থেকে সরাসরি ফোল্ডার আপলোড করতে চাইলে আপলোড ফোল্ডার থেকে  ফোল্ডার আপলোড করা যাবে। এছাড়াও আমার কাছে ব্যক্তিগত ভাবে কিছু অপশন ভালো লেগেছে । এগুলো হল গুগল শিটস, গুগল ডক্স যা খুবই গুরুত্ব পূর্ণ।

গুগল শিটসঃ 

আমদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যক্তিগত  তথ্য,ডেটা শিট ইত্যাদি এক্সেল শিটে তৈরি করতে হয়, যেগুলো স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটার থেকে ডিলিট বা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই সেই সকল তথ্য, ডেটা শিট নিরাপদে রাখার জন্য গুগল ড্রাইভের গুগল শিটস অপশন টি ব্যবহার করতে পারেন। আপনি চাইলে এখান থেকে আপনার তথ্য ডাউনলোড এবং আপডেট করতে পারবেন।

গুগল ডক্সঃ 

অনুরুপ ভাবে, গুগল ড্রাইভের গুগল ডক্স আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অপশন। এটিও গুগল শিট এর মতই। আপনার যত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সব কিছুইগুগল ডক এ লিখে রাখতে পারবেন। যখন প্রয়োজন হবে আপনি চাইলে এখান থেকে আপনার তথ্য ডাউনলোড এবং আপডেট করতে পারবেন।  

গুগল ডক এ মাইক্রোসফট ওয়াডের অনেক গুলো টুলস ই ব্যবহার করতে পারবেন। ওয়াডের ফ্রন্ট সাইজ, বোল্ড, ইটালিক, আন্ডার লাইন, ফ্রন্ট কালার ইত্যাদি সহ আরো অনেক গুলি টুলস রয়েছে। যে গুলির  সাহায্যে আপনি পরিপূর্ণ একটি ডকুমেন্ট তৈরি করতে পারবেন। 

কেন ব্যবহার করবঃ

আমারা সবাই ই চাই আমাদের প্রয়োজনীয় গুরুত্ব পূর্ণ ডেটা গুলো নিরাপদে সংরক্ষিত থাকুক। তাই এই ক্ষেত্রে আমার বেষ্ট চয়েস Google Drive। কেন আমি গুগল ড্রাইভ ব্যবহার করব তার অন্যতম কারণ হল ব্যাক-আপ সিস্টেম। গুগল ড্রাইভের ব্যাক-আপ অপশন টি এক্টিভ করা থাকলে অটোমেটিক অ্যাপস, ফোটো এবং ভিডিও Google Drive এ ব্যাক-আপ হয়ে যাবে। তবে এর জন্য আপনার ফোনে নেট কানেকশন থাকতে হবে।

 
গুগল ড্রাইভ এক ধরনের অনলাইন নেটওয়ার্কের মত কাজ করে। ধরুন আপনার বাসার পিসি এবং আপনার স্মার্ট ফোনে একই একাউন্ট থেকে গুগল ড্রাইভে লগইন করা আছে। আপনি বাইরে কোথাও বেড়াতে গিয়ে আপনার ফোন থেকে কিছু পিকচার, ভিডিও Google Drive এ আপলোড করলেন। আপনার বাসায় বসে থেকে ফ্যামেলি মেম্বার গণ বাসার পিসি দিয়ে সেই পিকচার, ভিডিও গুলো দেখতে পারবে।   

এ ক্ষেত্রে আপনার পিকচার, ভিডিও গুলো অরিজিনাল সাইজে ব্যক-আপ থেকে গেলো। পরবর্তিতে ডাউনলোড করার সময় অরিজিনাল সাইজের ফাইল ই ডাউনলোড করতে পারবেন।  এছাড়াও জরুরী কোন তথ্য, ডকুমেন্ট গুগল ড্রাইভে নিরাপদে রাখা যায় তেমনি অন্যের সাথে শেয়ার ও করা যায়। 

আপনি চাইলে এই লিংক থেকে Google Drive ডাইনলোড করতে পারেন। 

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন